ইউটিউবে খেলা যাবে ভিডিও গেম গুগল স্টেডিয়ার মাধ্যমে। আর থাকবে না কোন RAM সমস্যা।

ইউটিউবে ভিডিও দেখার মত সহজেই ভিডিও গেমস খেলা যাবে! গেমস ডাউনলোড, অ্যাপ ইন্সটল কিংবা আপডেট করা লাগবে না!! খেলা যাবে শুধুমাত্র ইন্টারনেট সংযোগ থাকলেই!

এমন গেমস আনার ঘোষণা দিয়েছে গুগল।

ইউটিউবে খেলা যাবে ভিডিও গেম গুগল স্টেডিয়ার মাধ্যমে। আর থাকবে না কোন RAM সমস্যা।

ইউটিউব এ প্রতি ঘন্টায় যত ভিডিও দেখা হয় তার বড় অংশটি গেমিং কন্টাক্ট। 2018 সালের সংখ্যার হিসেবে যা ছিল 50 বিলিয়ন ঘন্টা।

গেমিং কনটেন্টের এমন চাহিদা মাথায় রেখে এবার ইউটিউবে সরাসরি গেম খেলার সুবিধা চালু করল গুগল!

ব্রাউজার ভিত্তিক এই ভিডিও স্ট্রিমিং সেবার নাম দেওয়া হয়েছে স্টেডিয়া! গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই অনুষ্ঠানটিতে জানিয়েছেন
ইউটিউবে খেলা যাবে ভিডিও গেম গুগল স্টেডিয়ার মাধ্যমে। আর থাকবে না কোন RAM সমস্যা।

স্টেডিয়াতে স্বাগতম, একসাথে আমরা নতুন ধরনের গেমিং এর অভিজ্ঞতা দেব। এটি গুগল এর সার্ভিস সবার জন্য। গুগল বলছে স্টেডিয়াতে অ্যাপস ডাউনলোড এর প্রয়োজন নেই, নেই আপডেট কিংবা ইন্সটলের ঝামেলা!শুধুমাত্র ইন্টারনেট সংযোগ থাকলেই হল।

স্টেডিয়ার প্লে নাউ বাটন চেপেই খেলা যাবে পছন্দের গেমটি। মঙ্গলবার যার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন গুগলের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফিল হ্যারিসন
ইউটিউবে খেলা যাবে ভিডিও গেম গুগল স্টেডিয়ার মাধ্যমে। আর থাকবে না কোন RAM সমস্যা।
ফিল হ্যারিসন জানান, “কল্পনা করুন আপনি ইউটিউবে ভিডিও দেখছেন এবং ইউ ই সফটওয়্যার এর অফিশিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে আবিষ্কার করলেন নতুন গেম। আপনি সেখানে একটি প্লে নাও বাটন দেখতে পাবেন। সেই বাটনটিতে ক্লিক করলে ৫ সেকেন্ডের মধ্যে সরাসরি গেম খেলতে পারবেন। কোন ডাউনলোড লাগবেনা, আপডেট লাগবে না এমনকি গেমটি ইন্সটল করতে হবে না। অর্থাৎ স্টেডিয়া আপনাকে সরাসরি গেম খেলার সুবিধা দেবে।”

সান ফ্রান্সিস্কো তে গেম ডেভলপার এর সম্মেলনে স্টেডিয়ার ডেমো প্রদর্শন করে। গুগল বলছে “গেমাররা বর্তমানে কোন গেম খেলতে বেশ খানিকটা সময় অপেক্ষা করতে অভ্যস্ত, স্টেডিয়া সেই অপেক্ষার অবসান ঘটাবে।

বলা যায় অপেক্ষাকে অতীতের বিষয়ে পরিণত করবে। হ্যারিসন আরো বলেন, “আমাদের প্ল্যাটফর্মটির উদ্দেশ্য হচ্ছে গেম খেলার ব্যাপারে গেমারদের উৎসাহ দেওয়া, গেমটির সত্তিকারের খেলার অভিজ্ঞতার মাঝের দূরত্ব কমিয়ে আনা।”

স্টেডিয়া তে গেম খেলতে আপনাকে শুধু ইউটিউব ভিডিও অথবা লিংকে ক্লিক করতে হবে এবং তখনই ৫ সেকেন্ডের মধ্যে গেমটি খেলতে পারবেন! যেখানে অপেক্ষা করতে বিষয়ে সবাই অভ্যস্ত।

কিন্তু স্টেডিয়ার সাথে অপেক্ষার বিষয়টি হবে অতীত। স্টেডিয়াতে গেম খেলা যাবে যে কোন পিসি, টেলিভিশন কিংবা মোবাইল বা ল্যাপটপ এ

এর জন্য অবশ্য একটি কন্ট্রোলার প্রয়োজন হবে। তবে সবসময় যে কন্ট্রোলার প্রয়োজন হবে তা না। শুধুমাত্র টেলিভিশন এ গেম খলতে আপনাকে এই কন্ট্রোলার প্রয়োজন হবে।
ইউটিউবে খেলা যাবে ভিডিও গেম গুগল স্টেডিয়ার মাধ্যমে। আর থাকবে না কোন RAM সমস্যা।

চলতি বছরের মাঝেই প্রাথমিক ভাবে যুক্তরাষ্ট্র-কানাডা ও ইউরোপের কয়েকটি দেশে স্টেডিয়া সুবিধা পাওয়া যাবে। তবে কখন নাগাদ বাংলাদেশে বা ইন্ডিয়াতে এর সুবিধা আসবে সে বিষয়ে এখনো বলা হয়নি।

আশা করা যাচ্ছে খুব তাড়াতাড়ি এ সুবিধাটি বাংলাদেশি পাওয়া যাবে। হ্যারিসন আরো জানান, “স্টেডিয়া বিষয়ে আমাদের ধারণা স্বচ্ছ, সব ধরনের খেলার জন্য এটি একটি জায়গা যার কেন্দ্রবিন্দু হচ্ছে গেমার। অনুপ্রেরণায় ডেভেলপার এবং সম্প্রসারণে থাকবে ইউটিউব উদ্ভাবকরা!!”

স্টেডিয়া তে গেম খেলতে কি ধরনের ফি দিতে হবে তা প্রকাশ করেনি গুগল একই সাথে কোন গেম গুলো পাওয়া যাবে সে বিষয়েও কোনো ধারণা দেয়নি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটি।

এর মাধ্যমে গুগোল, অ্যামাজন এবং মাইক্রোসফট এর সাথে অনলাইন গেমিং এর প্রতিযোগিতায় নামলো।