রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন টেলিকম সংস্থা বিটিসিএল আসন্ন ৫ জি প্রযুক্তির জন্য নিজেকে প্রস্তুত করার জন্য ২২,১২১ কোটি টাকা মূল্যের প্রকল্প গ্রহণ করেছে এবং একই সাথে তার হারানো গৌরব ফিরে পেতে দাবি করেছে।
বিটিসিএল ৫জি প্রযুক্তির জন্য ২২,০০০ টাকার প্রকল্প গ্রহণ করছে

গতকাল বাংলাদেশ টেলিযোগযোগ সংস্থা লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ রফিকুল মতিন বলেছিলেন, “বাংলাদেশ ৫ জি মোবাইল পরিষেবা সম্পর্কে সরকার অত্যন্ত গম্ভীর, এবং এ কারণেই আমাদের সিস্টেম ও নেটওয়ার্কগুলিকে সমস্ত আধুনিক প্রযুক্তির সাথে সামঞ্জস্য করতে হবে।”

চলমান প্রকল্পগুলি শেষ হয়ে গেলে বিটিসিএল বাজারের যে কোনও অপারেটরের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারে, তিনি একটি বৈঠকে টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশের প্রতিনিধিদের বলেন।

বিটিসিএল বর্তমানে ২,৮৩৫.৬৫ কোটি টাকার চারটি প্রকল্পে কাজ করছে: টেলিকম নেটওয়ার্ককে আধুনিকীকরণ, সুইচ ও সংযোগ উন্নীতকরণ, মিরসরাই অর্থনৈতিক অঞ্চলে টেলিকম নেটওয়ার্ক স্থাপন এবং প্রায় ৫০০ স্কুল-কলেজগুলিতে ওয়াই-ফাই সংযোগ দেওয়ার জন্য ফাইবার অপটিক কেবল স্থাপন করা ইত্যাদি।

সংস্থাটির পরিকল্পনা ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের অনুমোদনের অপেক্ষায় ৩,৯৭৫.৫ কোটি টাকার পাঁচটি প্রকল্প রয়েছে।

মতিন আরও বলেন, প্রায় ১৫,৩১০ কোটি টাকার আরও নয়টি প্রকল্প “ধারণাগত পর্যায়ে” রয়েছে, মতিন আরও বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে সমস্ত প্রকল্প শেষ হওয়া উচিত।

তিনি বলেন, বিটিসিএলের ইন্টারনেট প্রোটোকল ভিত্তিক নেটওয়ার্ক বাজারের চাহিদা মেটাতে যথেষ্ট শক্তিশালী না হওয়ায় বর্তমান ব্যবস্থাপনাগুলি তাদের পরিষেবাগুলিকে প্রতিযোগিতামূলক করার চেষ্টা করছে।

সে লক্ষ্যে তাদের কাজ পরিচালনার দীর্ঘ তালিকা রয়েছে, তাদের মধ্যে কয়েকটি হ’ল ১ ৬ টি ব্যাকওয়াটার উপজেলায় ফাইবার অপটিক নেটওয়ার্ক স্থাপন, একটি টেলিকম যাদুঘর নির্মাণ এবং একটি টেলিকম স্টাফ কলেজ চালু করা।

প্রকল্পগুলি চূড়ান্ত করার আগে বিটিসিএল সম্ভাব্যতা সমীক্ষা চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন সংস্থার উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (পরিকল্পনা) একেএম হাবিবুর রহমান।